পাকিস্তানের তাপমাত্রা বিশ্বরেকর্ড করলো !

পাকিস্তানের তাপমাত্রা বিশ্বরেকর্ড করলো

পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশের নবাব শাহ শহরে তাপমাত্র রেকর্ড করা হয়েছে ৫০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, আর এই রকম ভয়াবহ তাপমাত্র বৃদ্ধির কারনে সেখানকার সাধারন মানুষ আছেন অনেক কষ্টে আর সেটাই স্বাভাবিক। তবে পাকিস্তানের তাপমাত্রা বিশ্বরেকর্ড করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। চলুন জেনে নেই বিস্তারিত।

পাকিস্তানের তাপমাত্রা বিশ্বরেকর্ড করলো !

পাকিস্তানের তাপমাত্রা বিশ্বরেকর্ড করলো
পাকিস্তানের তাপমাত্রা বিশ্বরেকর্ড করলো

ইতিএনে কাপিকিয়ান নামে একজন ফরাসি আবহাওয়াবিদ পাকিস্তানের নবাব শাহ শহরের রেকর্ড করা তাপমাত্রার বেপারটা প্রথমে নজরে আনেন। তিনি বলেন যে এপ্রিল মাসে এর আগে কখনো এশিয়া মহাদেশে এতো গরম পড়েনি আর এটাই এশিয়া মহাদেশে রেকর্ড।

গত মার্চ মাসেও পাকিস্তানের নবাব শাহ শহর রেকর্ড করেছিলো তাপমাত্রার দিক থেকে। এভাবে যদি তাপমাত্রা বাড়তে থাকে তাহলে অবশ্যই সেটা নবাব শাহ শহরে বসবাসকারী মানুষদের জন্য খুবই চিন্তার বেপার হয়ে দাঁড়াবে।

অন্য এক আবহাওয়াবিদ ক্রিস্টোফার বার্ট জানিয়েছেন যে ২০১১ সালের এপ্রিল মাসে মেক্সিকোর সান্তা রোজাতে ৫১ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা ছিলো, যদিও সেই তাপমাত্রার কোনো সুনির্দিষ্ট রেকর্ড বা তথ্য নেই। আর তাই পাকিস্তানের নবাব শাহ শহরের এই ৫০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা হতে পারে এপ্রিল মাসে পৃথিবীর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা।

আজকের খবর ছিলো পাকিস্তানের এক শহরে পৃথিবীর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা নিয়ে। একবার ভেবে দেখেছেন? ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের উপরে তাপমাত্রা! বেপারটা কিন্তু আমাদের চিন্তা ধারণার চেয়ে ও অনেক গুন বেশি ভয়াবহ।

এমন অস্বাভাবিক তাপমাত্রা যে শুধু মাত্র পাকিস্তানেই থাকবে, অন্য কোনো দেশে হবে বা সেটা কিন্তু কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারে না। এমন তাপমাত্রা বাড়ছে আমাদের ভুলের কারনেই।

আমরা যেই পরিমান গাছ কেটে ফেলছি সেই পরিমান গাছ কি লাগাচ্ছি? আবার আমরা বন জঙ্গল ধ্বংস করে বানাচ্ছি আমাদের স্বপ্নের শহর, কিন্তু সেই স্বপ্নের শহর বানাতে গিয়ে আমরা যে নিজেদের কতোটা ক্ষতি করছি সেটা কি আমরা কখনো ভেবে দেখেছি?

আমার যদি এভাবেই চালিয়ে যেতে থাকি তাহলে হয়তো খুব বেশি দেরি লাগবে না আমাদের একমাত্র বসবাস যোগ্য পৃথিবীটাকে বসবাসের অযোগ্য বানাতে।

আমরা আসলে সব সময় ভাবি বর্তমানের লাভের কথা। কিন্তু কখনো আমরা ভেবে দেখি না যে আমরা এখন যা করছি তার জন্য কি ভবিষ্যতে আমাদের কোনো ক্ষতি হবে কি না!

অবশ্যই আমাদের সবার উচিত বেশি বেশি করে গাছ লাগানো আর অকারনে গাছ না কাঁটা। শুধু যে গাছপালার সংখ্যা কমে যাবার কারনেই আমাদের পৃথিবীর তাপমাত্রা এতো বেড়ে যাচ্ছে তা নয়।

বিভিন্ন যানবাহন আর মেশিনের কালো ধোঁয়া আমাদের পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর। কিন্তু তাই বলে কি আমরা যানবাহন আর মেশিন চালানো বন্ধ করে দিবো! অবশ্যই না। আমাদের এমন কিছু আবিষ্কার করতে হবে যেটা পরিবেশের জন্য ভালো আর আমাদের জন্যও স্বাস্থ্যকর।

তবে একটা কথা বলতেই হয়, আমরা তো এখন মানুষ মারার জন্য বোমা তৈরীর কাজে ব্যস্ত। আমাদের কি এতো সময় আছে নাকি পরিবেশ নিয়ে ভাবার!

ভিন্ন রকম কিছু bangle news সবার আগে পেতে চাইলে আমাদের ওয়েবসাইট প্রতিদিন ভিজিট করতে ভুলবেন না যেনো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *